• ঢাকা
  • |
  • সোমবার ১০ই আষাঢ় ১৪৩১ বিকাল ০৪:২৩:২৩ (24-Jun-2024)
  • - ৩৩° সে:
এশিয়ান রেডিও
  • ঢাকা
  • |
  • সোমবার ১০ই আষাঢ় ১৪৩১ বিকাল ০৪:২৩:২৩ (24-Jun-2024)
  • - ৩৩° সে:

মতামত

কেন ইইউ’র রেজুলেশন পুনর্বিবেচনার দাবি রাখে?

২০ সেপ্টেম্বর ২০২৩ সন্ধ্যা ০৬:৩৮:১৫

কেন ইইউ’র রেজুলেশন পুনর্বিবেচনার দাবি রাখে?

ড. প্রণব কুমার পাণ্ডে: ২০২৪ সালে অবাধ ও সুষ্ঠু সংসদ নির্বাচনের জন্য বাংলাদেশ সরকার যেন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে সেই সম্পর্কিত একটি প্রস্তাবের উপর ইউরোপীয় পার্লামেন্টে (ইইউ) আলোচনা হয়েছে, যা বিভিন্ন মহলে বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। একই সাথে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে তাদের উদ্বেগ প্রকাশ করেছে এবং বাংলাদেশ সরকারকে মানবাধিকার সংস্থা-অধিকারের বিরুদ্ধে সমস্ত আইনি মামলা প্রত্যাহার করার আহ্বান জানিয়েছে। বিশেষ করে এই সংগঠনের প্রধানের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক দণ্ডের বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে। এই ধরণের আলোচনা মতপ্রকাশের স্বাধীনতার সীমানা পেরিয়ে একটি দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয় সম্পর্কে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলির ভূমিকা সম্পর্কে প্রশ্নের উদ্রেগ করেছে। যদিও ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিশ্বব্যাপী মানবাধিকার সমুন্নত রাখার জন্য প্রশংসনীয় প্রতিশ্রুতি রয়েছে, তবে একটি স্বাধীন দেশের অভ্যন্তরীণ সমস্যা সমাধানের জন্য এই ধরনের একটি রেজোলিউশন সেই সমস্যা সমাধানের জন্য সবচেয়ে কার্যকর উপায় কিনা তা মূল্যায়ন করা অপরিহার্য।

এটা স্বীকার করা অপরিহার্য যে কোনো গণতান্ত্রিক সমাজে মত প্রকাশের স্বাধীনতা থাকবে এবং মানবাধিকার সংস্থাগুলি তাদের কাজের মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। এই সংস্থাগুলি স্বচ্ছতা এবং জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার জন্য সরকার এবং অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম নজরদারি করতে পারে। যাইহোক, বাংলাদেশে মানবাধিকার সংস্থা-অধিকার এর মামলাটি ২০১৩ সালের হেফাজতে ইসলামীর সমাবেশে মৃত্যুর সংখ্যা সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য প্রচারের অভিযোগকে ঘিরে। মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলিসহ যে কোনও সংস্থার বিশ্বাসযোগ্যতা তাদের দেওয়া তথ্যের নির্ভুলতার উপর নির্ভর করে। যদি এটি প্রমাণিত হয় যে অধিকার মিথ্যা তথ্য প্রকাশ করেছে, তাহলে এটি নৈতিক ও আইনগত উদ্বেগ বাড়ায়।

অনেক মিডিয়া হাউস সেই সময় অধিকারের দাবির বিষয়ে স্বাধীন অনুসন্ধান চালিয়ে তাদের প্রকাশিত তালিকায় অসঙ্গতি খুঁজে পেয়েছিল। মৃত হিসাবে তালিকাভুক্ত অসংখ্য ব্যক্তিকে জীবিত পাওয়া গেছে তাদের অনুসন্ধানে। ফলে এই ধরণের কার্যক্রম মানবাধিকার সংস্থাগুলির দ্বারা প্রচারিত তথ্যের যথার্থতা নিশ্চিত করার উপর গুরুত্ব আরোপ করে। পাশাপাশি যে কোনও সম্ভাব্য অসদাচরণ মোকাবিলার জন্য একটি ন্যায্য এবং স্বচ্ছ আইনি প্রক্রিয়ার প্রয়োজনীয়তার উপর জোর দেয়। সেই সময়ে অধিকারের মাধ্যমে মিথ্যা তথ্যের বিস্তার শুধু সরকারের সুনামই নষ্ট করেনি বরং বাংলাদেশের জনগণের মধ্যে অসন্তোষের অনুভূতির জন্ম দিয়েছিল।

তাই, অধিকারের বিরুদ্ধে আইনি মামলা প্রত্যাহারের জন্য ইইউ পার্লামেন্টের আবেদনকে বাংলাদেশের আইনের শাসনকে সম্মান করার প্রেক্ষাপটে মূল্যায়ন করতে হবে। মতপ্রকাশের স্বাধীনতাকে সমর্থন করা এবং আইনি ব্যবস্থার পদ্ধতি এবং সিদ্ধান্তকে সম্মান করার মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখা অপরিহার্য। যদি অধিকারের পদক্ষেপগুলি বাংলাদেশের আইন লঙ্ঘন বলে মনে করা হয়, তাহলে সরকারের আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার অধিকার রয়েছে। ইইউ পার্লামেন্ট ন্যায়বিচার ও মানবাধিকারের নীতিগুলিকে সমুন্নত রেখে স্বচ্ছ ও ন্যায্যভাবে আইনি কার্যক্রম পরিচালনা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ সরকারের কাছে আবেদন করতেই পারে। তবে, আইনি অভিযোগ খারিজ করার অনুরোধ করা যুক্তিযুক্ত নয়। 
অধিকারের মামলাটির মাধ্যমে মত প্রকাশের স্বাধীনতা, মানবাধিকার সংস্থার জবাবদিহিতা এবং আইনের শাসনের মধ্যে জটিল সমীকরণের বিষয়টিকে তুলে ধরেছে। ফলে, তারা যেমন প্রত্যাশা করতে পারে যে একটি আইনি পদক্ষেপ ন্যায্যতা ও আন্তর্জাতিক মানদণ্ড মেনে চলবে, ঠিক তেমনি ভাবে ইইউ পার্লামেন্টের বাংলাদেশ সম্পর্কিত যে কোন ধরণের রেজুলেশন বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব এবং এর আইনি ব্যবস্থার প্রতি সম্মান জানানোর মাধ্যমে নেওয়া উচিত। তাই, একটি স্বাধীন জাতি হিসেবে বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বকে সম্মান জানিয়ে ইইউকে কেন আরও গঠনমূলক পন্থা অবলম্বন করা উচিত সেই বিষয়টি এই নিবন্ধে তুলে ধরা হয়েছে।

বাংলাদেশ একটি সার্বভৌম রাষ্ট্র যার নিজস্ব সরকার, সংবিধান এবং আইনি কাঠামো রয়েছে। একটি সার্বভৌম দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপকে তার সার্বভৌমত্বের লঙ্ঘন হিসাবে বিবেচনা করা যেতে পারে। ইইউ-এর জন্য আন্তর্জাতিক আইনের নীতি এবং জাতির সার্বভৌমত্বকে সম্মান করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কূটনৈতিক চ্যানেলের মাধ্যমে গঠনমূলক সম্পৃক্ততা এই উদ্বেগগুলি মোকাবিলায় আরও উপযুক্ত উপায় হতে পারে।

সংঘাতপূর্ণ হিসাবে দেখা যেতে পারে এমন রেজুলেশন জারি করার পরিবর্তে, ইইউকে বাংলাদেশ সরকারের সাথে সংলাপ এবং সহযোগিতা বৃদ্ধির দিকে মনোনিবেশ করা উচিত। দ্বিপাক্ষিক আলোচনাকে উৎসাহিত করা মানবাধিকার সমস্যা সমাধানের জন্য আরও ইতিবাচক ও সহযোগিতামূলক পদ্ধতির দিকে নিয়ে যেতে পারে। এ ধরনের সংলাপ ইইউকে বাংলাদেশের রাজনৈতিক ও সামাজিক প্রেক্ষাপটের জটিলতাকে আরও ভালোভাবে বোঝার সুযোগ করে দিতে পারে।

ইইউ বাংলাদেশের সুশীল সমাজের সংগঠনগুলিকে তাদের সমর্থন চালিয়ে যেতে পারে। মানবাধিকার রক্ষার জন্য এই সংস্থাগুলির প্রচেষ্টা দেশের মানবাধিকারের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। ফলে, সুশীল সমাজকে তাদের কাজ চালিয়ে যাওয়ার জন্য সম্পদ, প্রশিক্ষণ এবং প্ল্যাটফর্ম সরবরাহ করা ইতিবাচক পরিবর্তনের জন্য অনুকূল পরিবেশ তৈরি করতে সহায়তা করতে পারে। তবে, তারা যদি কোন ভুল কাজ করে তবে তাদের সাথে যুক্ত হয়ে সরকারের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়া ঠিক নয়।

বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক অনুঘটক। ইইউ-এর যে কোনো একতরফা পদক্ষেপের জন্য বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্কের টানাপড়েন আঞ্চলিক স্থিতিশীলতার ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। এই অঞ্চলের সকল রাষ্ট্রের সাথে ভাল কূটনৈতিক সম্পর্ক বজায় রাখা এবং আঞ্চলিক সংঘাতের শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্য কাজ করা ইইউ এর দায়িত্ব।

সুতরাং, ইইউ উচিৎ তাদের পদ্ধতি পুনর্বিবেচনা করার মাধ্যমে বাংলাদেশের সাথে আরো গঠনমূলক এবং কূটনৈতিক সম্পৃক্ততা বৃদ্ধি করা এবং বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বকে সম্মান করে মানবাধিকার বিষয়ক কোন সমস্যা থাকলে তার সমাধানের বিষয়ে সরকারের সাথে আলোচনা করা। অন্যথায়, এ ধরনের উদ্যোগকে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে অযাচিত অনুপ্রবেশ হিসেবে দেখা হতে পারে। ইইউ এর উচিত কূটনৈতিক চ্যানেলে বাংলাদেশ সরকারের সাথে সম্মানজনক সম্পৃক্ততার মাধ্যমে সমাধানগুলি খুঁজে বের করা। একতরফা সিদ্ধান্ত দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ক্ষতি করতে পারে এবং দেশের মধ্যে গঠনমূলক আলোচনাকে বাধাগ্রস্ত করতে পারে।

মানবাধিকারের পক্ষে ওকালতি করা এবং একটি রাষ্ট্রের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে হস্তক্ষেপের মধ্যে পার্থক্যে বিষয়টি সম্পর্কে সকল পক্ষকে সচেতন থাকতে হবে। তাছাড়া, দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের সঠিক ভারসাম্য বজায় রাখা চ্যালেঞ্জিং হবে। যাইহোক, আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলির উচিত তাদের দৃষ্টিভঙ্গির বিষয়ে সতর্ক হওয়া। তাদের উচিত কোন দেশের মৌলিক মানবাধিকারের বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করার সময় সেই দেশের সার্বভৌমত্বকে সম্মান করা।

লেখক: অধ্যাপক, লোকপ্রশাসন বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।

Recent comments

Latest Comments section by users

No comment available

সর্বশেষ সংবাদ

ফকিরহাটে চা দোকানদারের মরদেহ উদ্ধার
২৪ জুন ২০২৪ বিকাল ০৪:১২:১৭