• ঢাকা
  • |
  • মঙ্গলবার ৭ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ সকাল ০৬:৩৫:০৯ (21-May-2024)
  • - ৩৩° সে:
এশিয়ান রেডিও
  • ঢাকা
  • |
  • মঙ্গলবার ৭ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ সকাল ০৬:৩৫:০৯ (21-May-2024)
  • - ৩৩° সে:

খেলা

মিরাজ-শান্তর সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের স্কোর ৩৩৪

৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩ সন্ধ্যা ০৭:৩৫:১৩

মিরাজ-শান্তর সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের স্কোর ৩৩৪

খেলা ডেস্ক: শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে হারের কারণে কিছুটা ব্যাকফুটে ছিল বাংলাদেশ। তাই এশিয়া কাপে সুপার ফোরের আশা বাঁচিয়ে রাখতে হলে আফগানিস্তানের বিপক্ষে জয় ছাড়া কোনো পথ খোলা ছিলো না। এমন সমীকরণের ম্যাচে মেহেদি হাসান মিরাজ ও নাজমুল হোসেন শান্তর অনবদ্য সেঞ্চুরিতে ভর করে ৩৩৪ রানের বড় সংগ্রহ পেয়েছে বাংলাদেশ।

এশিয়া কাপে গ্রুপ পর্বের দ্বিতীয় ও শেষ ম্যাচে ৩ সেপ্টেম্বর রোববার আফগানিস্তানের বিপক্ষে কঠিন সমীকরণে ম্যাচে মাঠে নামে বাংলাদেশ। টাইগার ব্যাটাররা আজ দুর্দান্ত পারফর্ম করেন। ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরির দেখা পান মেহেদী হাসান মিরাজ ও নাজমুল হোসেন শান্ত। তাদের জোড়া সেঞ্চুরিতে ভর করে মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান ও শামীম হাসান পাটোয়ারীর ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ৫ উইকেটে ৩৩৪ রানের বড় সংগ্রহ করে লাল সবুজে দল। জয়ের জন্য আফগানদের প্রয়োজন ৫০ ওভারে ৩৩৫ রান।

কঠিন পথ পাড়ি দিতে বাংলাদেশের ইনিংস শুরু করেন মেহেদী হাসান মিরাজ ও নাঈম শেখ। ২৮ রান করে নাঈম আউট হলে কোন রান না করেই সাজঘরের ফেরেন তাওহিদ হৃদয়। এরপর নাজমুল হোসেন শান্ত ও মিরাজের জুটিতে আসে ১৯৪ রানের পার্টনারশিপ, বড় সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। দশম ওভারে নাঈম আউট হলে একাদশতম ওভারে সাজঘরে ফিরেন হৃদয়। পরপর ২উইকেট হারিয়ে ধাক্কাই খায় বাংলাদেশ। এমন পরিস্থিতিতে দলের হাল ধরে মিরাজ-শান্ত জুটি। তাদের চৌকস ব্যটিংয়ে বাংলাদেশের স্কোর শক্ত অবস্থান পায়। ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি পূরণ করেন মিরাজ। তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে আফগান বোলারদের দেখেশুনে খেলেন শান্ত। শেষ পর্যন্ত মুজিবুর রহমানের বল খেলতে গিয়ে আঙ্গুলে চোট পান মিরাজ, রিটায়ার হার্ড হয়ে মাঠ ছাড়েন ১১২ রানে।

এর মধ্য দিয়ে থেমে যায় শান্ত-মিরাজের ১৯০ বলে ১৯৪ রানের পার্টনারশিপ। পরে শান্ত তুলে নেন ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। ১০৪ রানে রানআউট হন শান্ত। মিরাজ-শান্ত সাজঘরে ফেরার পর বাংলাদেশের হাল ধরেন সাকিব ও মুশফিক, তারাও ব্যাট চালিয়েছেন নির্ভয়ে।

মুশফিক আউট হন ১৫ বলে ২৫ রান করে। এরপর ক্রিজে আসেন অভিষেক হওয়া শামীম পাটয়ারী। তিনি মাঠে এসে প্রথম বলেই ছক্কা হাঁকান। ক্যারিয়ারের প্রথম ওয়ানডে আন্তর্জাতিক ম্যাচে শামীম ৬ বলে ১১ রানের ইনিংস খেলে আউট হন। এরপর আফিফকে সঙ্গে নিয়ে ১৮ বলে ৩২ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন সাকিব। আর শেষ পর্যন্ত আফিফ অপরাজিত থাকেন ৩ বলে ৪ রান করে।

Recent comments

Latest Comments section by users

No comment available

সর্বশেষ সংবাদ