• ঢাকা
  • |
  • বুধবার ৫ই আষাঢ় ১৪৩১ বিকাল ০৪:৫৬:৩০ (19-Jun-2024)
  • - ৩৩° সে:
এশিয়ান রেডিও
  • ঢাকা
  • |
  • বুধবার ৫ই আষাঢ় ১৪৩১ বিকাল ০৪:৫৬:৩০ (19-Jun-2024)
  • - ৩৩° সে:

সারাবাংলা

মাধবপুরে বিলুপ্তের পথে গরিবের এসি খ্যাত মাটির ঘর

৮ এপ্রিল ২০২৩ বিকাল ০৩:২০:২৪

মাধবপুরে বিলুপ্তের পথে গরিবের এসি খ্যাত মাটির ঘর

আজিজুর রহমান জয়, মাধবপুর ( হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি: গ্রাম বাংলার চির ঐতিহ্যের নিদর্শন সবুজ শ্যামল ছায়া ঘেরা শান্তির নীড় মাটির ঘর। যা এক সময় গ্রামের মানুষের কাছে ‘গরীবের এসি বাড়ি’নামে পরিচিত ছিল। কিন্তু কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যের মাটির ঘর।

আধুনিকতার ছোঁয়া লেগেছে গ্রামেও। মাটির ঘরের জায়গায় তৈরি হচ্ছে প্রাসাদসম অট্টালিকা। মাটির ঘরের স্থান দখল করে নিচ্ছে ইট-পাথরের দালান। একটু সুখের আশায় মানুষ কত কিছুই না করছে। তবুও মাটির ঘরের শান্তি, ইট পাথরের দালান কোঠায় খুঁজে পাওয়া যায় না।

মানুষের অর্থনৈতিক সচ্ছলতা, প্রযুক্তির উন্নয়ন, রুচিবোধের পরিবর্তন, পারিবারিক নিরাপত্তা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে নিজেদের সুরক্ষার কারণে এখন আর কেউ মাটির ঘরে থাকতে চায় না। সচ্ছল মানুষেরা এখন ঝুঁকে পড়েছেন পাকা দালানের দিকে। তারপরও মানুষ যুগের সাথে তাল মিলিয়ে নগরায়ণের সাথে সাথে পাকা দালান কোঠা তৈরি করছেন। তাই আধুনিকতার ছোয়ায় আর সময়ের পরিবর্তনে গ্রাম বাংলা থেকে ঐতিহ্যবাহী মাটির তৈরি ঘর প্রায় বিলুপ্তের পথে।

বেশিদিন আগের কথা নয়, প্রতিটি গ্রামে একসময় মানুষের নজর কাড়তো সুন্দর এ মাটির ঘর। ঝড়, বৃষ্টি থেকে বাঁচার পাশাপাশি প্রচুর গরম ও খুবই শীতে বসবাস উপযোগী মাটির তৈরি এসব ঘর এখন আর তেমন চোখে পড়ে না।

আধুনিকতার ছোঁয়া আর কালের বিবর্তনে বিভিন্ন গ্রামে এ চিরচেনা মাটির ঘর বিলুপ্তের পথে বললেই চলে। অতীতে মাটির ঘর গরীবের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ঘর বলে পরিচিত ছিল। এ ঘর শীত ও গরম মৌসুম আরামদায়ক তাই আরামের জন্য গ্রামের দরিদ্র মানুষের পাশাপাশি অনেক বিত্তবানরাও মাটির ঘর তৈরি করে থাকতেন।

জানা যায়, প্রাচীনকাল থেকেই মাটির ঘরের প্রচলন ছিল। এটেল বা আঠালো মাটি কাঁদায় পরিণত করে দুই-তিন ফুট চওড়া করে দেয়াল তৈরি করা হত। ১০-১৫ ফুট উচু দেয়ালে কাঠ বা বাঁশের সিলিং তৈরি করে তার ওপর খড়, টালি বা টিনের ছাউনি দেয়া হতো। মাটির ঘর অনেক সময় দোতলা পর্যন্ত করা হতো। এসব মাটির ঘর তৈরি করতে কারিগরদের তিন-চার মাসের অধিক সময় লাগতো। গৃহিনীরা মাটির দেয়ালে বিভিন্ন রকমের আল্পনা একে তাদের নিজ বসত ঘরের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে তুলতেন।

মাধবপুর উপজেলার কাশিমনগর রেলস্টেশন থেকে দক্ষিণ দিকে গেলে সমজদিপুর গ্রামে এসে দেখা মিললো প্রাচীনকালের প্রচলিত মাটির ঘরের। এছাড়া আরও অনেক জায়গায় রয়েছে এমন মাটির ঘর।

বাড়িটিতে বসবাসরত লোকেরা জানান, তাদের বাপ, দাদার আমলে মাটির ঘরের সমারোহ ছিল অফুরন্ত। কিন্তু আজ যুগের সাথে তাল মিলিয়ে তার স্থান দখল করে নিয়েছে ইট কিংবা কংক্রিটের বড়বড় অট্টালিকা। যার ফলে মাটির তৈরি ঘর আজ গ্রাম থেকে প্রায় বিলুপ্ত। বর্তমান প্রজন্ম এই মাটির ঘরের সাথে অপরিচিত।

Recent comments

Latest Comments section by users

No comment available

সর্বশেষ সংবাদ






মৃত্যু আলাদা করতে পারেনি তাদের
১৯ জুন ২০২৪ দুপুর ০২:৪৫:৫২




ঈদগাঁওতে ছুরিকাঘাতে আহত ৬০, নিহত ১
১৯ জুন ২০২৪ দুপুর ০১:৪৫:২৯