• ঢাকা
  • |
  • বৃহঃস্পতিবার ১৬ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বিকাল ০৩:১৫:৩৩ (30-May-2024)
  • - ৩৩° সে:
এশিয়ান রেডিও
  • ঢাকা
  • |
  • বৃহঃস্পতিবার ১৬ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বিকাল ০৩:১৫:৩৩ (30-May-2024)
  • - ৩৩° সে:

খেলা

প্রথমবারের মতো ইউরোপ চ্যাম্পিয়ন হলো ম্যানসিটি

১১ জুন ২০২৩ সকাল ১১:২৯:২৮

প্রথমবারের মতো ইউরোপ চ্যাম্পিয়ন হলো ম্যানসিটি

স্পোর্টস ডেস্ক: ইতালিয়ান ক্লাব ইন্টার মিলানকে ১-০ গোলে হারিয়ে নিজেদের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয় করলো ইংলিশ ক্লাব ম্যানচেস্টার সিটি। ১৯৯৯ সালের পর এই প্রথম কোন ইংলিশ ক্লাব হিসেবে ট্রেবল জয় করলো ম্যানচেষ্টার সিটি। মোট ৮টি ক্লাব ১০বার ট্রেবল জয়ের কৃতিত্ব অর্জন করেছে। এর মধ্যে ম্যানইউর পর ম্যানসিটি হচ্ছে দ্বিতীয় ইংলিশ ক্লাব, যারা ট্রেবল জয় করলো। ইস্তাম্বুলের আতাতুর্ক অলিম্পিয়াত স্টেডিয়ামে ইতিহাসের সাক্ষী হলো কয়েক হাজার দর্শক।


ম্যানসিটি কোচ পেপ গার্দিওলার এটি দ্বিতীয় ট্রেবল জয় এবং তৃতীয় চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা। এর আগে বার্সেলোনার হয়ে দুবার জয় করেছেন, চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা। সে ধারাবাহিকতায় আরেকবার জিতলেন ট্রেবল শিরোপা। এর আগে ২০২০-২১ মৌসুমেও ফাইনালে উঠেছিল সিটি। কিন্তু সেবার চেলসির কাছে হেরে শিরাপো বঞ্চিত থাকতে হয়। এবার আর ইন্টার মিলানের কাছে হারতে হলো না।

সিটির হয়ে জয়সূচক একমাত্র গোলটি করেন স্প্যানিশ মিডফিল্ডার রদ্রি। হালান্ড, ডি ব্রুইন, ইলকায় গুন্ডোগান কিংবা বার্নার্ডো সিলভারা যখন গোল পাচ্ছিলেন না, তখন রদ্রিকের কৌশলকে কাজে লাগান কোচ গার্দিওলা। ম্যাচের ৬৮তম মিনিটে রদ্রি গোল করে নিশ্চিত হয় ম্যানসিটির শিরোপা।

ম্যাচের শুরু থেকেই ম্যানসিটির আধিপত্য স্পষ্ট । বল দখলের লড়াইয়ে গার্দিওলার শিষ্যরা ছিলেন অনেক এগিয়ে। ৫৬ ভাগ বল ছিল তাদের দখলে। ইন্টারের ছিল ৪৪ ভাগ বল দখলে। গোল লক্ষ্যে ৭টি শর্ট নিয়েছিল সিটি। তবে গোল লক্ষ্যে শট নেওয়ায় ইন্টার এগিয়েছিল। তারা শট নিয়েছে ১৪টি। যার টার্গেটে ছিল ৬টি। কিন্তু ম্যানসিটির ব্রাজিলিয়ান গোলরক্ষক এডারসন ছিলেন যেন হিমালয়ের মতো দৃঢ়। তাকে ফাঁকি দিয়ে একবারও বল জালে জড়াতে পারেনি।

২০০৮ সালে আবুধাবির রাজ পরিবার ম্যানসিটির দায়িত্ব নেয়ার পরই উত্থাম ঘটে ক্লাবটির। এরপরই তারা যেতে প্রথম ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ শিরোপা। তবে গত দেড় দশকে বেশ কয়েকবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ের দারুণ সম্ভাবনা তৈরি করেও কাঙিক্ষত সাফল্য পায়নি তারা।

সিটি একটি গোল করে এগিয়ে গেলেও সিমোনে ইনজাগির শিষ্যরা অন্তত দুবার সুযোগ পেয়েছিলো সমতায় ফেরার। একবার ফেডেরেকিনো ডিমারকো লাফিয়ে উঠেছিলেন একেবারে সিটির ফাঁকা পোস্টে হেড করে বল জড়ানোর। একই সময় হেড করতে লাফ দেন তার সতীর্থ রোমেলু লুকাকু। যার ফলে হেডটা ঠিকমত দিতে পারেননি। বল পোস্টের ওপর দিয়ে চলে যায়। আরেকবার রোমেলু লুকাকু নিজেও হেড করেছিলেন ৬ গজ দুর থেকে। কিন্তু তার হেডটি অসাধারণ ক্ষিপ্রতায় ফিরিয়ে দেন সিটি গোলরক্ষক এডারসন।

ম্যাচের শুরুতে গোল মেশিন আরলিং হালান্ড প্রায় গোল দিয়েই ফেলেছিলেন। কিন্তু তার একটি শট বারের ওপর দিয়ে চলে যায়। আরেকটি শর্ট অসাধারণ দক্ষতায় ফিরিয়ে দেন ইন্টার মিলান গোলরক্ষক আন্দ্রে ওনানা।

সিটি অধিনায়ক ইলকায় গুন্ডোগান বলেন, আমরা আজ ইতিহাস সৃষ্টি করেছি। আমরা জানতাম, সবাই ট্রেবল জয়ের কথা বলছিলো। যার কারণে প্রচুর চাপ ছিলো। কিন্তু এই দলটি এমন কিছু ফুটবলারে গড়া, যাদের চাপ জয় করার দারুণ সব সক্ষমতা রয়েছে।

Recent comments

Latest Comments section by users

No comment available

সর্বশেষ সংবাদ